জাতীয়

ভূমি আইন পাস হওয়ার খবরটি গুজব

‘ভূমি আইন পাস হয়েছে, ১০ জানুয়ারি থেকে কার্যকর হয়েছে’ এমন একটি খবর সাম্প্রতিক সময়ে ছড়িয়ে পড়েছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। তবে ভূমি মন্ত্রণালয় বলছে, ছড়িয়ে পড়া খবরটি সঠিক নয়। এটি একটি গুজব। এ নিয়ে গণবি’জ্ঞপ্তি জারি করেছে মন্ত্রণালয়।

ভূমি মন্ত্রণালয়ের বি’জ্ঞপ্তিতে বলা হয়, “ভূমিবিষয়ক আইন স’ম্পর্কিত ভু’য়া খবর/গুজব প্রসঙ্গে সতর্কতামূলক গণবি’জ্ঞপ্তি। এতদ্বারা সকলের অবগতির জন্য জানানো যাচ্ছে যে, ‘ভূমি আইন পাস হয়েছে, ১০ জানুয়ারি থেকে কার্যকর হয়েছে’ ম’র্মে একটি ভু’য়া খবর/গুজব সম্প্রতি বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে/ইন্টারনেটে ছড়িয়ে পড়েছে যা ভূমি মন্ত্রণালয়ের নিয়মিত সংবাদ পর্যালোচনার সময় নজরে আসে। এ ধরনের ভু’য়া খবর/গুজব জনমনে বিরূপ প্রভাব ও বি’ভ্রান্তি সৃষ্টি করছে, যা মোটেই কা’ম্য নয়।

প্রকৃত তথ্য হচ্ছে ‘ভূমি আইন’ নামে কোনো আইন জাতীয় সংসদে এখন পর্যন্ত প্রণয়ন করা হয়নি। সর্বসাধারণকে এ ধরনের ভু’য়া খবর/গুজবের বিষয়ে অধিকতর সতর্ক থাকার জন্য বিশেষভাবে অনুরোধ জানানো যাচ্ছে।

উল্লেখ্য, উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে ভু’য়া খবর/গুজব ইন্টারনেটে প্রচার করা বাংলাদেশের প্রচলিত আইনে শা’স্তিযোগ্য অ’প’রাধ।

হেল্পলাইন ১৬১২২ (বিদেশ থেকে +৮৮০ ৯৬১২৩ ১৬১২২) নম্বরে কল করে, কিংবা ভূমি মন্ত্রণালয়ের সার্ভিস পেজ ‘ভূমিসেবা খধহফ ঝবৎারপব’ (িি.িভধপবনড়ড়শ.পড়স/ষধহফ.মড়া.নফ) থেকে কমেন্ট করে কিংবা মেসেজ (বার্তা) প্রেরণ করে ভূমিসংক্রান্ত তথ্য জানা যাবে। ভূমি সেবা গ্রহণ করা যাবে এবং ভূমিবিষয়ক অ’ভিযোগ জানানো যাবে।

প্রসঙ্গত, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সংবিধান অনুযায়ী বাংলাদেশে আইন প্রণয়নের ক্ষমতা একমাত্র জাতীয় সংসদের। আইন প্রণয়নের ঘটনা জাতীয় জীবনে উল্লেখযোগ্য সংবাদ, যা সাধারণত দেশের সব জাতীয় গণমাধ্যমে খুবই গুরুত্বের সঙ্গে প্রচারিত হয়। এ ছাড়া নতুন আইন প্রণয়নের পর তা সরকারি গেজেট বি’জ্ঞপ্তির মাধ্যমেও প্রকাশ করা হয়। সংশ্লিষ্ট সব সরকারি পোর্টালে প্রকাশ করা হয়।’

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!